1. admin@hvoice24.com : admin :
শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ১০:০৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
বানিয়াচং ও আজমিরীগঞ্জে উপজেলা নির্বাচন, ভোটার উপস্থিতি নিয়ে শঙ্কা হবিগঞ্জ যাত্রী কল্যাণ পরিষদের বিবৃতির পর প্রশাসনের অভিযানে জরিমানা হবিগঞ্জ যাত্রী কল্যাণ পরিষদের কমিটি গঠন, সভাপতি-জুয়েল,সম্পাদক-তৌহিদুল ইসলাম গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার আন্দোলনে নির্যাতিত সম্মাননা পেলেন রুবেল চৌধুরী নরওয়েতে মৃত অবস্থায় পাওয়া গেছে পবিত্র কোরআন পোড়ানো ব্যক্তিকে সহযোগীতার হাত বাড়ালেন ওসি কামাল হারানো সন্তান-কে হজে গিয়ে ফিরে পেলেন মা বিএনপি নেতা কারাবন্দি, সন্তানের ভালোবাসা সীতাকুণ্ডে সন্ত্রাসী হান্নান কে অস্ত্র সহ গ্রেফতার ডাঃ মহিউদ্দিন হাইস্কুল এন্ড কলেজে বঙ্গবন্ধুর জন্মবার্ষিকী পালিত

রেলের জায়গায় কৃষি কাজের নামে লিজ নিয়ে কেএসআরএমের রাস্তা নির্মান

সীতাকুণ্ড প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত : রবিবার, ৯ এপ্রিল, ২০২৩
  • ৮৭ বার পঠিত

 

রেলের জায়গায় কৃষি কাজের নামে লিজ নিয়ে স্হায়ী ভাবে কেএসআরএমের রাস্তা নির্মাণ করেছে, মাটি কূড়ে জমি করার নির্দেশ দিলেন রেল কর্তৃপক্ষ।
চট্টগ্রাম রেল ওয়ের ভূমি বিভাগের সূত্রে জানা যায়,
কৃষি লিজ নিয়ে বাণিজ্যিক কাজ, জায়গা দখল, রেললাইনে ল্যাম্পপোস্ট, পুকুরে পাম্প হাউস বসানোর পূর্বের অপরাধগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেওয়ায় আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেছে বিতর্কিত শিল্প গ্রুপ কেএসআরএম। এবার রেলের গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় সীতাকুণ্ড উপজেলার বাড়বকুণ্ড এলাকায় রেললাইন ঘেঁষে রাস্তা নির্মাণের কাজ শুরু করেছে গ্রুপটি। প্রায় এক মাস ধরে রাস্তা নির্মাণের কাজ করলেও জানত না রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের তদারকির দায়িত্বে থাকা ভূমি বিভাগ।

তবে চট্টগ্রাম রেলওয়ে বিভাগীয় ব্যবস্থাপক (ডিআরএম) সরেজমিন গিয়ে পরিদর্শন করে কাজ বন্ধের নির্দেশ দিয়েছেন। একই সঙ্গে রেলের জায়গা থেকে রাস্তা নির্মানকৃত মাটি সরিয়ে নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। সাথে রেলওয়ে ভূমি বিভাগকে জায়গা পরিমাপ এবং নিরাপত্তা বাহিনীকে টহলের নির্দেশ দিয়েছেন।

সূত্রে জানা গেছে, সীতাকুণ্ড উপজেলার বাড়বকুণ্ড ইউনিয়নের সাবেক আনোয়ারা জুট মিলটি কিনে নেয় কেএসআরএম। সেখানে রডের কারখানার কাচামাল লোহার বার,স্ক্যাপ ডিপু গড়ে তোলে। রেল থেকে কৃষি লিজ নিয়ে বাণিজ্যিক কার্যক্রম পরিচালনার পাশাপাশি দেয়াল দিয়ে দখলে নেয়। সম্প্রতি রেললাইনে পূর্ব পাশে কারখানার স্ক্র্যাপ ডিপোতে যাতায়াতের জন্য রেলের জায়গায় রাস্তা নির্মাণ শুরু করে। বুধবার নিয়মিত টহলে গিয়ে বিষয়টি দেখতে পান ডিআরএম।

রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের ডিআরএম আবিদুর রহমান প্রতিনিধি কে বলেন, বুধবার পরিদর্শনে গিয়ে দেখি, রেললাইন ঘেঁষে রাস্তা নির্মাণ করছে কিছু শ্রমিক। রাস্তাটি কবির স্টিল রি-রোলিং মিলস লিমিটেড (কেএসআরএম) নির্মাণ করছে বলে জানায় তারা। এ সময় জায়গার দলিলপত্র দেখতে চাইলে তারা কিছুই দেখাতে পারেনি। তাই তাৎক্ষণিক নির্মাণ কাজ বন্ধের নির্দেশ দিয়েছি। রাস্তার জন্য রাখা মাটি সরিয়ে নিতে তাদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। অন্যথায় তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তিনি আরও বলেন, কিছু জায়গা বাদ দিয়ে রাস্তা করছে। ঢাকা-চট্টগ্রাম ডাবল লাইন ও কক্সবাজারের সঙ্গে রেল যোগাযোগ শুরু হলে ওই জায়গায় রেললাইন নির্মাণ করতে হবে। এমন গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় তারা অনুমতি ছাড়া রাস্তা নির্মাণ করছে।

রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের চট্টগ্রাম বিভাগীয় ভূ-সম্পত্তি কর্মকর্তা মাহবুব উল করিম জানান, জায়গা পরিমাপের জন্য আদেশ দেওয়া হয়েছে। রেলের জায়গায় রাস্তা নির্মাণ করলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর পরিদর্শক মো. রেজওয়ানুর রহমান বলেন, ডিআরএম স্যারের নির্দেশে সীতাকুণ্ডের বাড়বকুণ্ড এলাকায় টহল দল কাজ করছে। বৃহস্পতিবার থেকে রাস্তা নির্মাণের কাজ বন্ধ রয়েছে। রেলের জায়গায় রাস্তার কাজ করতে কেউ এলেই আটক করা হবে।

এদিকে রেলওয়ের বিভাগীয় ভূমি শাখার মাঠকর্মীদের অবহেলার কারণেই বাববার কেএসআরএম রেলের জায়গা দখল করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। বিশেষ করে আমিন ও কানুনগোর যোগসাজশে এ ধরনের ঘটনা ঘটছে। নিয়মিত পরিদর্শন করলে জায়গা দখলের মতো ঘটনা ঘটত না।

রেলের জায়গায় রাস্তা নির্মাণের বিষয়ে জানতে চাইলে কেএসআরএম গ্রুপের ভূমি বিভাগের ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ কামাল রেগে যান। তিনি বলেন, ‘কেএসআরএম রাস্তা নির্মাণ করছে। এতে আপনাদের সমস্যা কী, আপনারা সব জায়গায় ফোন করছেন কারণ কী,রাস্তা নির্মানে আপনাদের কোনো সমস্যা আছে।’

রেল কর্মকর্তারা বলছেন, দোহাজারী-কক্সবাজার রেললাইন চালু, ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটে হাইস্পিড ট্রেন চালুর পরিকল্পনা করছে সরকার। এতে আরও একাধিক লাইন নির্মাণ হবে। ফলে রেললাইনের আশপাশের জায়গা দখলমুক্ত রাখতে কঠোর নির্দেশনা দিয়েছে রেল মন্ত্রণালয়। এরই মধ্যে বিভিন্ন এলাকায় রেললাইন নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে। রেলের প্রয়োজনে কৃষি ও বাণিজ্যিক লিজ দিয়েছিল। লিজের শর্ত ভঙ্গ করলে তা বাতিলের বিধান রয়েছে। এক্ষেত্রে বর্তমানে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ কোনো ছাড় দিচ্ছে না। কেবল কেএসআরএম গ্রুপের বিষয়ে সিদ্ধান্তহীনতায় রয়েছে। এর আগেও দখলে নেওয়া জায়গা উচ্ছেদের সিদ্ধান্ত নিয়েও তা স্থগিত করেছিল।
কেএসআরএম রেল,সড়ক ও জনপথের জায়গা দখল,পাহাড়কাটা সহ নানান অপরাধ করে যাচ্ছে বীর দর্পে।সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ দেখেও না দেখার ভান করছে অজ্ঞাত কারনে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা